31 C
Dhaka

আমৃত্যু শেখ হাসিনার সৈনিক থাকবো: আশিক

প্রকাশিত:

মোঃ আশিকুল ইসলাম আশিক। রাজধানীর পল্লবী থানার অন্তর্গত ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক। তূণমূল থেকে উঠে আসা এই রাজনীতিবিদ আসন্ন ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের কমিটির সভাপতি হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে রয়েছেন।

কিছুদিনের মাঝে ঘোষণা হতে যাওয়া ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে সবার পছন্দের তালিকায় এগিয়ে রয়েছেন মোঃ আশিকুল ইসলাম আশিক।

আশিকুল ইসলাম আশিকের জন্ম একটি সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে। স্থানীয় গরিব-দুঃখীদের মাঝে তার পূর্ব পুরুষদের বিভিন্ন সাহায্য সহযোগিতার কারণে এলাকায় খুবই জনপ্রিয় ছিলো তার পরিবার। তার দাদা ডাক্তার নাসির উদ্দিন সেইকালে দান খয়রাতের কারণে স্থানীয়ভাবে খুবই জনপ্রিয় ছিলেন। আশিকের বাবা সালাউদ্দিন আহমেদ পাঁচবাগ ইউনিয়নের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি ছিলেন।

এছাড়াও রাজধানীর পল্লবীর মুসলিম বাজার এলাকায় ময়মনসিংহ ট্রেডার্স-এ সৎভাবে পাইকারী ব্যবসা পরিচালনার কারণে এবং স্থানীয়ভাবে অসংখ্য মানুষকে সাহায্য সহযোগিতা করার কারণে তৈরি হওয়া জনপ্রিয়তার প্রেক্ষিতে পিতার হাত ধরে আশিক রাজনীতিতে প্রবেশ করেন। সক্রিয় কর্মী হিসেবে ১৯৭৯ সালে বৃহত্তর ২নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের কর্মী হিসেবে ভূমিকার কারণে তাকে বৃহত্তর ২নং ওয়ার্ড যুবলীগের সদস্য সচিব নির্বাচিত করা হয়।

পরবর্তী সময়ে বৃহত্তর ২নং ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। এরপর একে একে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের কার্যকরী সদস্য, মহানগর উত্তর যুবলীগের সহ-সভাপতি এবং সদ্য সাবেক পল্লবী থানাধীন ২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে।

মোঃ আশিকুল ইসলাম আশিক

তৃণমূল কর্মী হিসেবে একে একে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনকালে ১৯৯০ সালে স্বৈরাচারী এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা রাখেন আশিক। এছাড়াও, ১৯৯৩ সালে মিরপুরে হওয়া উপনির্বাচনে ভোট কারচুপির প্রতিবাদে হওয়া আন্দোলনে প্রথমসারিতে থেকে আন্দোলনকে বৃহৎ আন্দোলনে রূপ দেন। পরবর্তীতে ১৯৯৬ সালে বিএনপির একতরফা নির্বাচন প্রতিহত করতে মিরপুরে রাজপথে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন।

আশিক রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়ার পর থেকে হওয়া প্রতিটি সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারণায় বিশেষ ভূমিকা পালন করেন। ছাত্রলীগ করাকালীন সময় থেকে এ যাবৎকাল পর্যন্ত সকল আন্দোলন, সংগ্রাম, মিছিল, মিটিং ও দলীয় কর্মসূচী সফল করতে নিজেকে উজাড় করে দিয়েছেন।
মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের এই সন্তান রাজনৈতিক কারণে অসংখ্যবার মিথ্যা মামলার শিকার হয়ে কারা বরণ, নির্যাতন, মামলা-হামলার শিকার হয়েছেন। তবুও ছিলেন দলের প্রতি নিবেদিত প্রাণ।

এই বিষয়ে মোঃ আশিকুল ইসলাম আশিক বলেন, ষড়যন্ত্রকারীরা ষড়যন্ত্র করবে। আমি কেমন তা দলীয় নেতা-কর্মী ও স্থানীয়রা খুব ভালোভাবে জানে। তাই এই সকল ষড়যন্ত্র অর্থহীন। রাজনৈতিক কারণে অতীতে আমার বিরুদ্ধে অসংখ্য মামলা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমি আল্লাহর উপর ভরসা করি। সত্যের জয় হবেই। তাই ষড়যন্ত্রকারীরা ষড়যন্ত্র করতে থাকুক। আমি জনগনের ভালোবাসাটুকুই চাই। পদ-পদবী নিয়ে আমার লোভ নেই। নেতা-কর্মীদের ইচ্ছের মূল্য দিতে গিয়ে আমাকে পদ নিতে হয়। পদ পেলেও আমি আওয়ামী লীগের জন্য আমার সাধ্যের সবটুকু করবো, না পেলেও করবো। আমি জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করে এই পর্যন্ত এসেছি, আমৃত্যু শেখ হাসিনার সৈনিক হিসেবে থাকবো ইনশাল্লাহ।

সম্পর্কিত খবর

সর্বশেষ খবর

spot_img