23 C
Dhaka

ইচ্ছামত প্যারাসিটামল খাওয়া থেকে সাবধান। যা হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়িয়ে দিতে পারে।

প্রকাশিত:

এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞরা ১১০ জন উচ্চ রক্তচাপের রোগীর উপর প্যারাসিটামল নিয়ে একটি ট্রায়াল চালান। তাদেরকে দুই সপ্তাহ ১ গ্রাম করে প্রতিদিন চারবার প্যারাসিটামল খাওয়ানো হয়। চারদিনের মধ্যেই এই রোগীদের রক্তচাপ লক্ষণীয়ভাবে বেড়ে গিয়েছে। যা প্রায় ২০ শতাংশ বাড়িয়ে দিয়েছে স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাকের সম্ভাবনা।

সর্দি-কাশি, মাথা ব্যথা, জ্বর, গায়ে হাতে ব্যথা হলেই প্যারাসিটামল খাওয়ার অভ্যাস রয়েছে অনেকেরই। নিমেষেই শারীরিক স্বস্তি প্রদান করতে পরিচিত এই ওষুধ। কিন্তু সম্প্রতি এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের ঐ গবেষণায় জানা গেছে, এই ওষুধটি একটানা খেলে রক্তচাপ বাড়ে। ফলে বেড়ে যায় হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের ঝুঁকি। তাই গবেষকরা জানিয়েছেন, রক্তচাপ কিংবা হার্টের রোগীদের প্যারাসিটামল দেওয়ার আগে সাবধান হতে হবে চিকিৎসকদের।

প্যারাসিটামল
প্যারাসিটামল

ব্রিটেনে প্রতি ১০ জনের মধ্যে ০১ জনকে দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার জন্য প্রতিদিন প্যারাসিটামল খাওয়ানো হয়। যেখানে প্রতি তিনজনের মধ্যে একজন উচ্চ রক্তচাপের রুগী। এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ডেভিড ওয়েব জানিয়েছেন, আইবুপ্রোফেন-এর মতো ওষুধ রক্তচাপ বাড়িয়ে দেয়, এই ধারণার উপর ভিত্তি করেই চিকিৎসকরা রোগীদের প্যারাসিটামল খাওয়ার পরামর্শ দেন। এটাই নিরাপদ বিকল্প বলে সবসময় ভাবা হয়। কিন্তু এবার প্যারাসিটামলের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নিয়েও ভাবা উচিত। এই ওষুধ কিন্তু হার্ট অ্যাটাক ও স্ট্রোকের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয়। তাই, এবার হার্ট অ্যাটাক বা স্ট্রোকের ঝুঁকিতে থাকা রোগীদের প্যারাসিটামলের ব্যবহার বন্ধ করা উচিত। গবেষকদের মতে, দীর্ঘস্থায়ী ব্যথার জন্য যাদের প্যারাসিটামল প্রয়োজন, তাদের রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য আলাদা ওষুধ ব্যবহার করা উচিত।

আজকালকার দিনে প্যারাসিটামল খুবই সাধারণ একটি ওষুধ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। প্রতিটি মেডিকেল স্টোরেই পাওয়া যায় এই ওষুধ। জ্বর, মাথাব্যথা, গায়ে হাত পায়ে ব্যথা, এরকম বহু উপসর্গ সারাতে সর্বপ্রথমে প্যারাসিটামলের কথাই মাথায় আসে। সবচেয়ে বেশি বিক্রি হয় এই ওষুধ। এমন অনেকেই আছে যারা ব্যথা সইতে না পেরে নিয়মিত প্যারাসিটামল খান। নিরাপদ মনে করেই অনেক চিকিৎসক রক্তচাপের রোগীদেরও প্যারাসিটামল খাওয়ার নিদান দেন। গবেষণা অনুযায়ী, প্যারাসিটামল নিয়মিত সেবনে হার্ট অ্যাটাকের মতো গুরুতর সমস্যা হতে পারে। তাই কথায় কথায় প্যারাসিটামল খাওয়া উচিত নয়। এডিনবার্গের গবেষকরা জানিয়েছেন, চোখ বন্ধ করে রোগীকে প্যারাসিটামল লেখার দিন শেষ। কারণ, এই ওষুধেরও রক্তচাপ বাড়িয়ে দেওয়ার মতো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। রোগীদের এই ওষুধ দেওয়ার সময় ডাক্তারদেরও সতর্ক থাকতে হবে বলে মনে করেন গবেষকরা।

সম্পর্কিত খবর

সর্বশেষ খবর

spot_img