18 C
Dhaka

কলেজ অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা, ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও)

প্রকাশিত:

নড়াইল সদর উপজেলার মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের বিরুদ্ধে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে গলায় জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছিত করার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে অনলাইনে। এই ঘটনার তীব্র ক্ষোভ ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ)।

সোমবার, ২৭ জুন গণমাধ্যমে পাঠানো বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির এক বিবৃতিতে বলা হয়, ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে প্রকৃত অপরাধীরা মূলত কোমলমতি শিক্ষার্থীদের নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করছে কিনা তা খুঁজে বের করতে হবে। প্রকৃত অর্থে দুর্নীতিবাজরা নিজেদের স্বার্থ রক্ষার জন্যই ধর্ম অববাননার বিষয়ে গুজব তুলেছে বলেই অভিজ্ঞ মহল মনে করছে। এই ঘটনায় মধ্য দিয়ে প্রমাণিত হচ্ছে দেশে অবকাঠামোগত উন্নয়ন হলেও মানুষের মগজের উন্নয়ন হয়নি। এখনও দুর্নীতিবাজ আর লুটেরারা নিজেদের স্বার্থ রক্ষায় ধর্মকে ব্যবহার করছে আর আম জনতা ব্যবহৃত হচ্ছে।  

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের একটি পোস্টকে কেন্দ্র করে কলেজ অধ্যক্ষের গলায় জুতার মালা পরানোর ঘটনার ভিডিও এবং ছবি ছড়িয়ে পড়লে ক্ষোভ প্রকাশ করেন অনেকে। পুলিশের উপস্থিতিতে একজন শিক্ষককে এভাবে অসম্মান করার বিষয়টি নিয়েও প্রশ্ন উঠেছে। অনেকের অভিযোগ, ধর্মীয় সংখ্যালঘু হওয়ার কারণে ওই শিক্ষককে এভাবে অপমানিত হতে হয়েছে।

এই ঘটনার পেছনের কারণ সম্পর্কে জানা গেছে, মহানবী (সাঃ) কে নিয়ে ভারতের বিজেপি নেত্রী নূপুর শর্মার বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রতিবাদ চলছে। এর মধ্যেই মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের এক ছাত্র ফেসবুকে একটি পোস্ট দেয়। ওই পোস্টকে কেন্দ্র করে ঘটনার সূত্রপাত।

গত ১৭ জুন পোস্টটি দেওয়ার পরদিন ওই ছাত্র কলেজে উপস্থিত হলে তাকে পোস্টটি মুছে ফেলতে বলেন কলেজের শিক্ষার্থীরা। এরমধ্যেই খবর রটে, অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাস নাকি ওই ছাত্রের পক্ষ নিয়েছেন।

বিষয়টি নিয়ে উত্তেজনা সৃষ্টি হয় এলাকায়। স্থানীয় কিছু লোকজন অধ্যক্ষ ও দুজন শিক্ষকের মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেন। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে স্থানীয়দের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়।

এক পর্যায়ে ধর্ম অবমাননার অভিযোগে মির্জাপুর ইউনাইটেড কলেজের একদল ছাত্র ও স্থানীয়রা ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরিয়ে তাকে ক্ষমা চাইতে বাধ্য করেন। ঘটনার কিছু ছবি এবং ভিডিও ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে ভাইরাল হয়ে যায়। সেসব ছবি ও ভিডিওতে ঘটনাস্থলে পুলিশের উপস্থিতি দেখা যায়।

সম্পর্কিত সংবাদ

spot_img

সর্বশেষ সংবাদ

spot_img