30 C
Dhaka

কিশোর শাহাদাত খুন: প্রতিশোধ নিতে ছক কষে রতন গ্রুপ

প্রকাশিত:

কুমিল্লা নগরীতে দাপিয়ে বেড়ানো কিশোর গ্যাং ঈগল গ্রুপ ও রতন গ্রুপের মধ্যে আধিপত্য বিস্তারের জেরে শুক্রবার কিশোর শাহাদাত হোসেনকে হত্যা করা হয়। হত্যাকাণ্ডে নেতৃত্ব দেওয়া রতন গ্রুপের প্রধান রতনসহ ছয় সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব ১১-এর সিপিসি-২ কুমিল্লার একটি টিম। রোববার র‌্যাব কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানান কোম্পানি কমান্ডার মেজর মোহাম্মদ সাকিব হোসেন। হত্যায় জড়িত থাকার অভিযোগে আরও ১১ জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

র‌্যাব জানায়, নিহত শাহাদাত কিশোর গ্যাং ঈগল গ্রুপের সদস্য ছিল। ৬-৭ মাস আগে শাহাদাতসহ ঈগল গ্রুপের কয়েকজন রতন গ্রুপের এক সদস্যকে মারধর করে। এর জেরে কয়েক দফা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পরে গত শুক্রবার বিকেলে পার্কে শাহাদত অবস্থান করছে এমন তথ্য পেয়ে প্রতিশোধ নিতে রতনের নেতৃত্বে অন্য সদস্যরা ফৌজদারি মফিজাবাদ কলোনী মাঠে জড়ো হয়ে হামলার ছক কষে।

সিসিটিভি ফুটেজ পর্যালোচনা করে র‌্যাব জানায়, রতন গ্রুপের সদস্য রাব্বি নিহত শাহাদাতকে ধরে থাকা অবস্থায় তানজীদ সুইচ গিয়ার দিয়ে প্রথমে এলোপাতাড়ি আঘাত করে। অন্য সদস্য রানা কিলঘুষি মারতে থাকা অবস্থায় আকাশ সুইচ গিয়ার দিয়ে শাহাদাতের পেটের বাঁ পাশে আঘাত করতে থাকে। অন্য সদস্য রতন, হাসিব, রিয়াজ, সানি, সাব্বিরসহ কয়েকজন শাহাদাতকে লাথি ও ঘুষি মারতে থাকে। রাসেল, সিয়াম, আসিফ বড় ছুরি নিয়ে শাহাদাতকে চারপাশ থেকে ঘেরাও করে রাখে এবং নবী পিঠে বড় ছুরি দিয়ে আঘাত করলে শাহাদাত ঘটনাস্থলে লুটিয়ে পড়ে। তখন আত্মগোপনে চলে যায় হামলাকারীরা।

র‌্যাবের হাতে গ্রেপ্তাররা হলো- নগরীর ফৌজদারি এলাকার মফিজাবাদ কলোনীর মো. রতন (২০), আকাশ হোসেন (২০), সিয়াম হোসেন (২০), ভাটপাড়া এলাকার মো. তানজীদ (১৯), সদর উপজেলার বাঘমারা গ্রামের ইয়াসিন আরাফাত প্রকাশ রাসেল (২১) ও আসিফ হোসেন রিফাত (১৯)। অভিযানের সময় তাদের কাছ থেকে বেশ কিছু ধারালো ছোরা উদ্ধার করা হয়। পুলিশের অভিযানে গ্রেপ্তাররা হলো- আসিফ (২০), সাব্বির (২১), সাগর (১৮) ও বাকি ছয়জন ১৫-১৬ বছর বয়সী। এ ছাড়া দু’জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)। র‌্যাব কমান্ডার মেজর সাকিব হোসেন জানান, গ্রেপ্তার ব্যক্তিদের কোতোয়ালি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হানিফ সরকার বলেন, পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার ৯ জনকে আদালতে সোপর্দ করে পাঁচ দিনের রিমান্ড চাওয়া হয়েছে। বাকিদের সোমবার (আজ) আদালতে সোপর্দ করা হবে।

শুক্রবার কিশোর শাহাদাতকে হত্যার ঘটনায় ৩০ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন তার মা। নিহত কিশোর নগরীর উত্তর গাংচর এলাকার শাহ আলম মিয়ার ছেলে।

সম্পর্কিত খবর

সর্বশেষ খবর

spot_img