31 C
Dhaka

কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় চা‌ দোকা‌নি গৃহবধূর সঙ্গে যা ঘটলো

প্রকাশিত:

কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় এক ৩০ বছর বয়সী এক গৃহবধূকে শ্লীলতাহানিসহ ধ-র্ষ-ণে-র চেষ্টা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই ঘটনায় থানায় অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে। শ্লীলতাহানি ও ধ-র্ষ-ণচেষ্টার এই ঘটনা ঘটেছে খুলনার মোংলা উপ‌জেলায়।

গত সপ্তা‌হে পূজার অনুষ্ঠান দেখে রা‌তে বাড়ি ফেরার পথে ওই গৃহবধূর পথরোধ করে পর‌নের জামা-কাপড় ছিঁড়ে ফেলে লম্পট চার যুবক। এসময় শ্লীলতাহানির পাশাপাশি ধ-র্ষ-ণে-র চেষ্টাও চালা‌নো হয় ওই গৃহবধূর ওপর।

ওই ঘটনায় শ্লীলতাহানি ও ধ-র্ষ-ণ-চেষ্টার শিকার ওই গৃহবধূ অভিযুক্ত চার যুবকের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

মোংলা থানায় দায়েরকৃত অভিযোগে বলা হয়, উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের ঢালীরখন্ড গ্রামের ওই গৃহবধূকে দীর্ঘদিন ধরে উত্যক্ত করার পাশাপাশি কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল একই এলাকার হুমায়ুন ঢালী (৪৫), মুশফিকুর রহমান (২৮), বুলবুল শেখ (৩০) এবং আবুল হোসেন ঢালী (৪৫)। কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় গৃবধূর ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ও‌ঠে তারা।

এরপর গত মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে ওই গৃহবধূ চটেরহাট পূজা মন্দির চত্বরে আয়োজিত অনুষ্ঠান দেখে বাড়ি ফিরছিলেন। পথিমধ্যে ঢালীরখন্ড ব্রিজের কাছে পৌঁছালে ওই চার যুবক তার পথরোধ করে। এক পর্যায়ে তার পরনের কাপড়-চোপড় টেনে ছিঁড়ে বিবস্ত্র করে ফেলে। এসময় শ্লীলতাহানি ও ধ-র্ষ-ণে-র চেষ্টাও করে অ‌ভিযুক্ত চার যুবক।

ভিক‌টি‌মের ডাক চিৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে এলে যুবকরা সেখান থেকে পা‌লি‌য়ে যায়। পরে খবর পেয়ে ‌ভিক‌টি‌মের পরিবারের লোকজন তাকে সেখান থেকে উদ্ধার ক‌রে রাত ১টার দিকে থানায় নিয়ে যান। থানা পুলিশ তাকে দেখে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দিলে রাত দেড়টার দিকে হাসপাতালে ভর্তি করেন তার স্বজনরা।

হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ভিক‌টি‌মের শরীরের বিভিন্ন জায়গায় ন‌খের আঁচর, খামচি ও মারাত্মক মারধরের কার‌ণে সৃষ্ট আঘাতের চিহ্ন দেখা গেছে। শ্লীলতাহানির পর ধ-র্ষ-ণচেষ্টায় ব্যর্থ হয়ে ওই যুবকরা ভিক‌টিমকে বেদম মারপিট করে জখম করে বলেও অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে।

বর্তমানে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ভিক‌টিম। নির্যাতনের শিকার ওই গৃহবধূ ঢালীরখন্ড এলাকায় একটি চায়ের দোকান দিয়ে জীবিকা নির্বাহ করে আসছেন।

এদি‌কে ঘটনার স‌ঙ্গে জ‌ড়িত থাকার কথা অস্বীকার করে অভিযুক্ত মুশফিকুর রহমান বলেন, আমার বিরুদ্ধে অভিযোগে যে সময় উল্লেখ করা হয়েছে ওই সময়ে আমি মন্দির কমিটির লোকজনের সাথে মন্দির এলাকায় ছিলাম। আপনারা খোঁজ খবর নিয়ে দেখেন। বাকী অভিযুক্তদের সাথে কথা বলার জন্য চেষ্টা করা হলেও তাদের ফোনে পাওয়া যায়নি।

এদি‌কে মোংলা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ও‌সি) মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম জানান, ঢালীরখন্ডের ওই গৃহবধূর একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। ওই অভিযোগের তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান পু‌লি‌শের এই কর্মকর্তা।

সম্পর্কিত খবর

সর্বশেষ খবর

spot_img