22 C
Dhaka

ক্যাঙ্গারু ও উট প্রজাতির লামা এখন চট্টগ্রামে

প্রকাশিত:

অস্ট্রেলিয়ান ‘ক্যাঙ্গারু’ ও মরুর উট প্রজাতির ‘লামা’এক সময় টিভিতে দেখলেও এখন থেকে দেখা যাবে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায়। হল্যান্ড থেকে আনা ১২টি ক্যাঙ্গারু ও লামা দেখতে প্রতিদিন দর্শনার্থীরা ভিড় করছে এই চিড়িয়াখানায়। কিছুদিন আগে এই বিনোদন কেন্দ্রটি আকর্ষণীয় হয়ে ওঠে সাদা বাঘের কারণে। তবে এবার নতুন প্রাণীগুলোর কারণে আরও দর্শনার্থী বাড়বে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় বর্তমানে বিরল সাদা বাঘ ছাড়াও বিভিন্ন প্রজাতির পশু পাখি রয়েছে। পশুর মধ্যে আছে সিংহ, ভাল্লুক, কুমির, চিত্রা হরিণ, মায়া হরিণ, উল্টোলেজি বানর, উল্লুক, হনুমান, গয়াল, সজারু এবং জেব্রা ইত্যাদি। এ দিয়ে সব মিলিয়ে প্রানীর সংখ্যা দাড়িয়েছে প্রায় ৬৮টি।বাঘের জন্য ব্যাপক পরিচিতি পাওয়া জেলা প্রশাসন পরিচালিত এই চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় হল্যান্ড থেকে আনা ৬টি ক্যাঙ্গারু ও ৬টি লামা গত শুক্রবার ভোরে এসে পৌঁছায়।

এ বিষয়ে চিড়িয়াখানার ডেপুটি কিউরেটর ডা.শাহাদাত হোসেন শুভ জানান, চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন দরপত্রের মাধ্যমে এক কোটি ঊনসত্তর লাখ টাকায় বেশ কিছু প্রানী যেমন সিংহ, ম্যাকাউ, ওয়েলবিস্ট, ক্যাঙ্গারু, লামা সংগ্রহের উদ্যোগ নেয়া হয়। তারই অংশ হিসেবে ক্যাঙ্গারু ও লামাগুলো এসে পৌঁছেছে। সকাল ১০টা থেকেই তা দর্শনার্থীদের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে। তবে পরিবেশের সাথে মানিয়ে নিতে খাচার চারপাশে কালো কাপড় দিয়ে ঢেকে রাখা হয়। তবে বেশ ফুরফুরে মেজাজে আছে ক্যাঙ্গারুগুলো। আর লামাগুলো পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করছে। ৬টি ক্যাঙ্গারুর মধ্যে দুটি পুরুষ ও চারটি নারী। আর ৬টি লামার মধ্যে ৪টি নারী। এরা তৃণভোজী প্রাণী।

প্রথমবারের মতো চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় এই দুই প্রজাতির প্রাণী আনা হয়েছে। সাদা বাঘ দেখতে চট্টগ্রামের বাইরে থেকে প্রতিদিন দর্শনার্থীরা আসে। এখন ক্যাঙ্গারু ও লামা দেখতেও দর্শনার্থীরা চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় ছুটে আসবে। এদিকে গত বুধবার চিড়িয়াখানায় গিয়ে দেখা গেছে, বিভিন্ন বয়সের দর্শনার্থীরা বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আসা শুরু করেছে। দুপুরের পর থেকেই নতুন অতিথি ক্যাঙ্গারু ও লামা দেখতে এসেছে চট্টগ্রামসহ এর আশপাশের জেলা ও উপজেলার বাসিন্দারা। পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বিভিন্ন বয়সের দর্শনার্থী ভিড় করছে এখন চিড়িয়াখানায়। পতেঙ্গা থেকে ছুটির দিনে মামার বাড়িতে বেড়াতে আসা রুমা ও তার ছোট ছেলে রামিম এসেছে সাদা বাঘ দেখতে।

তিনি জানান, এসেছি সাদা বাঘ দেখতে, তবে চিড়িয়াখানায় এসে খবর পাই যে ক্যাঙ্গারু ও আনা হয়েছে তাই খবর পেয়ে সন্তানদের নিয়ে এসেছি। চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় অনেক প্রাণী আছে। প্রসঙ্গত চিড়িয়াখানায় প্রবেশ করতেই পক্ষীশালায় থাকা হরেক রকমের পাখির কলকাকলিতে মুখরিত চারপাশ। এরসঙ্গে সাদা বাঘ, উটপাখি, ইমু, অজগরসহ হরেক প্রাণীর উপস্থিতিতে বদলে যাওয়া এই চিড়িয়াখানা এখন দেশের সবচেয়ে আকর্ষণীয়। ছোট্ট চার শাবকসহ এই চিড়িয়াখায় সাদা বাঘের সংখ্যা পাঁচ। এরমধ্যে দুটি বাঘিনী। তাতে ভবিষ্যতে আরও সাদা বাঘ পাওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে।

সম্পর্কিত সংবাদ

spot_img

সর্বশেষ সংবাদ

spot_img