18 C
Dhaka

বাবার পরকীয়ার জেরে ছাত্রলীগ কর্মী বাবলু হত্যা, বিচার চেয়ে মানববন্ধন

প্রকাশিত:

কুড়িগ্রামে ছাত্রলীগ কর্মী বাবলু হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে কুড়িগ্রাম জেলা ছাত্রলীগ। হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে ফাঁসির দাবি তোলা হয়েছে দলটির পক্ষ থেকে।

বৃহস্পতিবার, ৩০ জুন দুপুরে কুড়িগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে ঘন্টাব্যাপী এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। মানববন্ধন শেষে বিক্ষোভও অনুষ্ঠিত হয়।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন নিহত ছাত্রলীগ কর্মী বাবলুর মা মনোয়ারা বেগম, ভাবী নুসরাত জাহান, জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি রাজু আহম্মেদ, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক সোলায়মান গাদ্দাফীসহ আরও অনেকে। তারা অবিলম্বে বাবলু হত্যার সাথে জড়িত সসবাইকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার জোর দাবি তোলেন।

এতিকে বাবলু হত্যা মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, কুড়িগ্রাম সদর উপজেলার বেলগাছা ইউনিয়নের নীলকণ্ঠ গ্রামের শহিদুল ইসলামের (নিহত ছাত্রলীগ নেতা বাবুলের পিতা) সাথে একই পাড়ার আলী হোসেনের স্ত্রীর পরকীয় আছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

গত ২৮ জুন রাত ১টার দিকে আলী হোসেনের উঠানে একটি সালিশ বৈঠক বসে। সেখানে অভিযুক্ত শহিদুল ইসলামকে ডাকা হলেও তিনি যাননি। পরে সালিশের লোকজন শহিদুলকে ডেকে আনতে তার বাড়িতে গেলে শালিসকারীদের সঙ্গে শহিদুলের ছোট ছেলে ও জেলা ছাত্রলীগ কর্মী শামীম আশরাফ বাবলুর কথা কাটাকাটি হয়।

এক পর্যায়ে লাঠি দিয়ে বাবলুর ওপর হামলা চালানো হয়। গুরুতর আহত বাবলুকে রাতেই কুড়িগ্রাম জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন বাবলু।

ঘটনার পরদিন ২৯ জুন নিহত বাবলুর বড় ভাই মশিউর রহমান বাদী হয়ে কুড়িগ্রাম সদর থানায় মামলা দায়ের করেন।

এ প্রসঙ্গে কুড়িগ্রাম সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মো. শাহরিয়ার জানান, মামলার এক নম্বর আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এই ঘটনায় জড়িত অন্যদের গ্রেপ্তারের জন্য পুলিশের জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে বলেও জানান এই পুলিশ কর্মকর্তা।

সম্পর্কিত সংবাদ

spot_img

সর্বশেষ সংবাদ

spot_img