18 C
Dhaka

বিয়ের পর নিন্দা ও প্রশংসায় ভাসছেন সানাই মাহবুব (ভি‌ডিও)

প্রকাশিত:

সাবেক এক মন্ত্রীকে বিয়ের ঘোষণা দিয়ে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন বছর তিনেক আগে। তিন বছরের মাথায় বিয়ে করলেন ঠিকই। তবে সেই মন্ত্রীকে নয়, এক ব্যাংক কর্মকর্তাকে। অনেকেই হয়তো ধরে ফেলেছেন, কার কথা বলা হচ্ছে। ঠিকই ধরেছেন। বলা হচ্ছে বহুল আলোচিত মডেল ও অভিনেত্রী সানাই মাহবুবের কথা।

গত শুক্রবার, ২৭ মে বেসরকারী ব্যাংক কর্মকর্তা আবু সালেহ মুসাকে বিয়ে করেছেন সানাই মাহবুব। মুসা ঢাকায় একটি বেসরকারি ব্যাংকে চাকরি করেন। সানাইয়ের বিয়ের আয়োজন করা হয় তার বাবার বাড়ি নীলফামারিতে। বরের বাড়িও একই জেলায়।

অতীতে নানা উল্টা পাল্টা কীর্তি ঘটিয়ে বিতর্কিত হয়েছিলেন সানাই। ব্রেস্ট ইমপ্ল্যান্ট থেকে শুরু করে সোশ্যাল মিডিয়ায় আপত্তিকর ও খোলামেলা ছবি প্রকাশ করে একটা সময় দেশজুড়ে হইচই ফেলে দেন তিনি।

২০১৯ সালে সাবেক এক মন্ত্রীর সঙ্গে বাগদান হয়েছে বলে ঘোষণা দেন সানাই। তিন বছর পর তারা বিয়ে করবেন বলেও ঘোষণা দেন। একই বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে অশ্লীলতার অভিযোগে ডিএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিট তলব করলে হাজিরা দিতে হয়েছিল সানাইকে। তখন অবশ্য মুচলেকায় স্বাক্ষর করে ছাড়া পান তিনি।

২০২১ সালে অভিনয় ছেড়ে দেওয়ার ঘোষণা দেন সানাই। এরপর থেকেই নিজেকে গুটিয়ে নেন তিনি। গত গত শুক্রবার, ২৭ মে হঠাৎ করেই তার বিয়ের খবর প্রচারিত হয় দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে।

সানাইয়ের বিয়ের খবর জানাজানি হওয়ার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় চলতে থাকে সানাইয়ের বিয়ের পক্ষ-বিপক্ষ নিয়ে মন্তব্যের লড়াই।

সানাই তার অতীত জীবনের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে সঠিক পথে ফিরে এসেছেন বলে মন্তব্য করেন অনেকে। তারা সানাইয়ের নতুন জীবনকে স্বাগত জানানোর পাশাপাশি নবদম্পতিকে শুভেচ্ছায় সিক্ত করেন।

অন্যদিকে আরেকটি দল সানাইয়ের অতীত জীবনকে টেনে এনে কটুক্তি করতে থাকেন। শুধু সানাই নয়, তার স্বামীকে নিয়েও কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করেন কেউ কেউ।

শুরুতে চুপ থাকলেও বিয়ের চার দিনের মাথায় মঙ্গলবার ৩১, মে বিকেল ৩টার দিকে নিজের বিয়ে নিয়ে ফেসবুকে আবেগঘন এক পোস্ট দেন একটা সময়ে বহু বিতর্কের জন্ম দেওয়া মডেল ও অভিনেত্রী সানাই মাহবুব।

সানাই মাহবুবের বিয়ের অনুষ্ঠান

স্বামীর হাতে হাত রাখা কয়েকটি ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে সদ্য বিবাহিত সানাই মাহবুব লেখেন, আর যে হাতটা সমাজ, সংসার সব কিছুর কথা ছেড়ে আমার হাতটা ধরলো…আমি সেই হাতটা সারাজীবনের জন্য ধরে রাখতে চাই…। আমাদের জন্য দোয়া রাখবেন যেন তাড়াতাড়ি ওমরাহ করতে পারি…। আল্লাহ যেন ওমরাহ নসিব করেন তাড়াতাড়ি।

সানাইয়ের বিয়ে নিয়ে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করেছেন এমন কয়েকজনের মন্তব্য তুলে ধরা হলো:

শাহিন মিয়া লিখেছেন, দোয়া রইলো, কিন্তু ভাইয়া কি এখনো বেঁচে আছে!

ফরহাদ রেজা লিখেছেন, এই চাওয়া সারাজীবন থাকলেই হলো।

মো. হারুন লিখেছেন, অনলাইন পরিষ্কার করতে হবে!

মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন লিখেছেন, হ্যাঁ দোয়া আছে, তবে মিডিয়ায় যেন আর না আসো এই কামনা করি।

রাসেল লিখেছেন, দাম্পত্য জীবন সুখী হোক দোয়া করি। তার সাথে বলি একটা পরামর্শ, আপনি সোশ্যাল মিডিয়া থেকে একটু দূরে থাকুন। এতে আপনার জীবন সংসার সুন্দর হবে। মনে কষ্ট পেলে ক্ষমা করে দিবেন।

রশিদ আহমেদ লিখেছেন, আমার সাথে নেক্সট ডেট কবে করবা আপু।

মোঃ বাবলু লিখেছেন, ছয় মাস থাকতে পারবেন?

আব্দুল মালিক হাসান লিখেছেন, আমি জানলে তো বিয়ে করে নিতাম। এরকম কেউ থাকলে আমার সাথে যোগাযোগ করবেন। বিশেষ করে জেনারেল লাইন থেকে দ্বীনের পথে ফিরে আসা বোনদের বলছি।

ফাহিম হোসেন লিখেছেন, তুমি স্বামীর হাত ধরে থেকো, আর তোমার স্বামী তোমার 🍒 ধরে থাকুক।

তৌহিদুল ইসলাম লিখেছেন, তাহলে ভালো পথে আসলা।আবার পল্টি নিও না।

শর্মিলা এঞ্জেল লিখেছেন, দুধের শক্তি বাড়াও আপু।

মোহাম্মদ মঞ্জু লিখেছেন, ওমরাহ করাটা সহজ। এর পবিত্রতা রক্ষা করাটাই কঠিন। দেখা যাক, পারে কিনা।

তৌফিক আহমেদ সাজিদ লিখেছেন, হাততালি, ভাই জিতছেন।

ভদ্র পোলা নামে একজন ছদ্মনামী লিখেছেন, আপনার আগের ভিডিওগুলো ইউটিউব থেকে সরিয়ে দেওয়া হোক।

দেলোয়ার হোসেন সাগর লিখেছেন, একটা জিনিস বুঝলাম না। বিয়েতে দেখলাম বুড়া জামাই। আর (ফেসবুকে পোস্ট করা স্বামীর হাতে হাত রাখা ছবিতে) দেখি আমার বয়সী ছেলের হাত। মাথায় কিছু কাজ করছে না।

জয়নাল আবেদীন লিখেছেন, এই বরের রুচির সমস্যা আছে।

রিপন লিখেছেন, চাচা কিন্তু টেনশনে আছেন।

আফরোজা খানম রিয়া লিখেছেন, বানর বুড়ো হলেও গাছে গাছে লাফায়।

কুচ কুচ হোতা হ্যায় নামে একজন ছদ্মনামী লিখেছেন, কয়লা ধুলে ময়লা যায় না।

অন্যদিকে সানাইয়ের নতুন জীবনকে স্বাগত জানানোর পাশাপাশি নবদম্পতিকে শুভেচ্ছায় সিক্ত করা কিছু মন্তব্য নিচে তুলে ধরা হলো:

ইরা শিকদার লিখেছেন, অনেক অনেক দোয়া ও শুভ কামনা রইলো।

শেখ সুন্নাহ লিখেছেন, বেস্ট অব লাক। মহান আল্লাহ আপনাকে হেদায়েত দান করেছে। এর চেয়ে বড় কিছু আমি মনে করি না হতে পারে। অনেক বড় পাওয়া আপনার জন্য এটা।

মোঃ জাকির হোসেন লিখেছেন, আল্লাহ আপনাদের সুখে রাখুন। এবং দীনের উপর অটল থাকার তৌফিক দান করুন।

বিশ্বাস শব্দটাই মিথ্যা নামে একজন ছদ্মনামী লিখেছেন, দুটি ফুল ফুটেছিল অচিন বনে, বিনা সুতায় গাঁথা হল মোহাম্মদী দ্বীনে। শুভ হোক আগামী পথ চলা। শুভ কামনা রইলো।

মোহাম্মদ ইয়াহিয়া সাঈদ লিখেছেন, আল্লাহ পাক যেন দ্রুত ওমরা করার তাওফিক দান করেন আমিন।

সবুজ আলম লিখেছেন, মহান আল্লাহ কাকে কখন হেদায়েত দান করেন কেবলমাত্র তিনিই জানেন। এ জগতে আমরা সবাই কমবেশি পাপী। রব কাকে কখন মাফ করবেন কেউ জানে না।

মেহেদি হাসান শুভ লিখেছেন, একটা মানুষ ভালো পথে ফিরে আসতে চাইলে তাকে নিয়ে না হেসে, খারাপ মন্তব্য না করে তাকে ভালো কাজে স্বাগতম জানান। কারণ আল্লাহ কখন কাকে দ্বীনের পথে কবুল করে ফেলেন তা আল্লাহ ছাড়া কেউ জানে না আলহামদুলিল্লাহ।

সানাই এর বিত‌র্কিত ফটোশুটের ‌ভি‌ডিও

সম্পর্কিত সংবাদ

spot_img

সর্বশেষ সংবাদ

spot_img