31 C
Dhaka

বোটানিক্যাল গার্ডেনে প্রেমিককে জিম্মি করে প্রেমিকাকে গণ-ধ-র্ষ-ণ (ভিডিও)

প্রকাশিত:

রাজধানীর মিরপুরে বোটানিক্যাল গার্ডেনে বর্বরোচিত গণধ-র্ষ-ণে-র খবর পাওয়া গেছে। শুধু তাই নয়, অভিযুক্ত তিন ধ-র্ষ-কে-র কাছ থেকে তিন লাখ টাকা আদায় করে ঘটনাটি ধামাচাপা দেয়ারও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা গেছে, তিন ধ-র্ষ-কে-র কাছ থেকে পাওয়া তিন লাখ টাকার মধ্য থেকে এক লাখ টাকা ভিকটিমকে দিয়ে তার মুখ বন্ধ রাখতে বাধ্য করা হয়েছে। বাকি দুই লাখ টাকা ভাগ বাটোয়ারা করে নেয়া হয়েছে।

গত ১৭ অক্টোবর ন্যাক্কারজনক ঘটনাটি ঘটে। এরপর প্রায় এক মাস পেরিয়ে গেলেও তা গোপন রাখা হয়েছে। এমনকি স্থানীয় পুলিশকেও ঘটনাটি জানতে দেয়া হয়নি।

জানা যায়, রাজধানীর মহাখালী থেকে ভিকটিম তার বয়ফ্রেন্ডকে নিয়ে গত ১৭ অক্টোবর, সোমবার দুপুরে বোটানিক্যাল গার্ডেনে বেড়াতে যান। বোটানিক্যাল গার্ডেনের পরিচালকের অফিসের পেছন দিকে অবস্থিত লেক পয়েন্ট সংলগ্ন জঙ্গলাকীর্ণ নির্জন জায়গায় ভিকটিমকে তার বয়ফ্রেন্ডের সঙ্গে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখতে পেয়ে তার বয়ফ্রেন্ডকে মারধর ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করেন তিন ব্যক্তি। একপর্যায়ে তারা বয়ফ্রেন্ডকে জিম্মি করে ভিকটিমকে জোরপূর্বক পালাক্রমে ধ-র্ষ-ণ করেন।

পরে ঘটনাটি জানতে পারেন বোটানিক্যাল গার্ডেনের নিরাপত্তায় নিয়োজিত এক ব্যক্তি। তিনি ভিকটিমসহ অভিযুক্ত তিন ধ-র্ষ-ক-কে তার ঘরে নিয়ে যান। অত্যন্ত গোপনীয়তার সঙ্গে ঘটনাটির মীমাংসা করে দেওয়ার নির্দেশ পাওয়ার পর তিনি ভিকটিমের বক্তব্য শোনেন। এরপর ধ-র্ষ-ক জহিরুল, মিন্টু এবং জাকিরকে ক্ষমা চাইতে বলেন। তারা ক্ষমা চায় মেয়েটির কাছে।

এরপর এই ঘটনা প্রকাশ করতে নিষেধ করা হয় ভিকটিমকে। কিন্তু তিনি ঘটনাটি চেপে যেতে রাজি হননি। এ অবস্থায় তাকে টাকার প্রলোভন দেখানো হয়। তিন ধ-র্ষ-কে-র কাছ থেকে তিন লাখ টাকা আদায় করার কথা বলে মীমাংসার চেষ্টা করা হয়। সিদ্ধান্ত হয়, মেয়েটিকে এক লাখ টাকা দেয়া হবে। এরপর এক রকম জোর করেই ভিকটিমের কাছ থেকে সাদা কাগজে লিখিত নেয়া হয়। বোটানিক্যাল গার্ডেনের ভেতর ধর্ষণের ঘটনা ঘটেনি বলে তিনি লিখিত দিতে বাধ্য হন।

এদিকে জানা গেছে, ধ-র্ষ-ক দলটি মাঝেমধ্যেই বোটানিক্যাল গার্ডেনে বিভিন্ন ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে থাকে। তারা বোটানিক্যাল গার্ডেনের আশপাশের এলাকার বাসিন্দা। প্রায় সারাদিনই বোটানিক্যাল গার্ডেনের ভেতর অবস্থান করেন তারা। বোটানিক্যাল গার্ডেনের ভেতর নানা ধরনের অপরাধমূলক কর্মকান্ড চালিয়ে টাকা হাতিয়ে নেওয়াই তাদের পেশা।

এদিকে বোটানিক্যাল গার্ডেনের ভেতর গণধর্ষণের মতো বর্বর ঘটনা ঘটেছে কি না জানতে চাইলে বোটানিক্যাল গার্ডেনের পরিচালক জাহিদুর রহমনা মিয়া বলেন, এরকম কোনো ঘটনা বোটানিক্যাল গার্ডেনে ঘটেনি।

সম্পর্কিত খবর

সর্বশেষ খবর

spot_img