28 C
Dhaka

মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে টুটুল

প্রকাশিত:

সাইফুল ইসলাম তানভীর, সিংগাইর (মানিকগঞ্জ) প্রতিনিধি: আসন্ন মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়নে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রয়েছেন আওয়ামী রাজনীতির দুঃসময়ের কান্ডারী বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক জাতীয় পুরষ্কার প্রাপ্ত ক্রীড়া সংগঠক সিংগাইরের দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুল ।

ইতিমধ্যে তিনি দলের মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করে তা জমাও দিয়েছেন। এছাড়াও এ পদে বতর্মান জেলা পরিষদ প্রশাসক এ্যাড. গোলাম মহিউদ্দিন ও সাটুরিয়া উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. আব্দুল মজিদ ফটোও আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বলে জানা গেছে।

মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে টুটুল
মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে টুটুল

এদিকে জেলা পরিষদ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর থেকেই শুরু হয়েছে প্রার্থীদের প্রচার-প্রচারণা। তফসিল অনুযায়ী আগামী ১৭ অক্টোবর ভোট গ্রহণের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। এ নির্বাচনে জেলার ৮৯২ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ৬৮৪ জন এবং মহিলা ভোটার রয়েছেন ২০৮ জন।

গতকাল বুধবার (৭ সেপ্টেম্বর ) রাতে মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের নিজ গ্রাম বাইমাইলে ভোটারদের সঙ্গে এক মতবিনিময় সভার আয়োজন করেন। এতে বায়রা ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি দেওয়ান জিন্নাহ লাঠু’র সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন- দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুল, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মুশফিকুর রহমান খান হান্নান ও শিল্পপতি দেওয়ান জাহিদ আহমেদ টুলু।

এছাড়াও অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- এ্যাড. লুৎফর রহমান, এ্যাড. মোহাম্মদ জাহিদ খাঁন উজ্জল, আবুবকর সিদ্দিক, সায়েস্তা ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান আবু বক্কর সিদ্দিক, জার্মিত্তা ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন, পৌর প্যানেল চেয়ারম্যান মো. সমেজ উদ্দিন প্রমূখ। আরো উপস্থিত ছিলেন বিভিন্ন ইউপি থেকে আগত চেয়ারম্যান ও মেম্বারসহ নেত্রীবৃন্দ।

ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব টুটুল মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার বায়রা ইউনিয়নের বাইমাইল (বাড্ডা) গ্রামের ১৯৬০ সালে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মৃত দেওয়ান হেলাল উদ্দিনের পাঁচ ছেলে ও দুই মেয়ের মধ্যে টুটুল সর্বকনিষ্ঠ এবং দুই মেয়ের জনক।

আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, দেওয়ান সফিউল আরেফিন টুটুল যুব ও ক্রীড়া সম্পাদকের দায়িত্বে থাকাকালীন তার নেতৃত্বে সমগ্র মানিকগঞ্জে আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, সেচ্ছাসেবকলীগসহ সকল সহযোগী অঙ্গসংগঠনগুলোকে ঢেলে সাজিয়ে সুঙ্খলভাবে তিনি রাজীনিত করেছেন। তিনি কোনো প্রতিহিংসার রাজনীত করেননি।

সচ্ছ ও ভালোমানের মানুষ হিসেবে তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং মানিকগঞ্জ জেলারবাসীর কাছে সু-পরিচিতি লাভ করেছেন। জেলা পরিষদের একাধিক ভোটারে সঙ্গে কথা বললে তারা জানান- দেওয়ান শফিউল আরেফিন টুটুল একজন ভালো মনের মানুষ এবং আওয়ামীলীগের নেতা। তিনি যদি মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন তাহলে জেলা পরিষদ হবে পরিচ্ছন ও জবাবদিহিতার কেন্দ্রস্থল।

মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে টুটুল
মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে টুটুল

রাজনৈতিক অঙ্গনে তৃণমূল থেকে উঠে আসা টুটুল বিভিন্ন সময়ে রেখেছেন গুরুত্বপূর্ণ অবদান। ১৯৯৩সালে সিংগাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্যপদ লাভ, এরপর ২০০২-২০১৬ পর্যন্ত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুব ও ক্রীড়া সম্পাদকের দায়িত্বও পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে ২০০১ সালে সংসদ সদস্য পদে মানিকগঞ্জ-০৪ (সিংগাইর ও মানিকগঞ্জ সদরের আংশিক) আসন থেকে নৌকা প্রতীকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছিলেন।

অবশ্য ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ফল বিপর্যয় ছিল। বতর্মানে তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুব ও ক্রীড়া উপ-কমিটির ১নং সদস্য এবং বাইমাইল যুগের আলো ক্লাবের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। এখনও তিনি রাজনৈতিক, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও সামাজিক বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে টুটুল
মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে টুটুল

টুটুল ১৯৯৮-২০০১, ২০০২ এবং ২০০৮-২০১২ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক, ২০১১ সালে বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত ক্রিকেট বিশ্বকাপ আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক এবং উদ্বোধনী অনুষ্ঠান আয়োজক কমিটির সদস্য সচিব ছিলেন। তিনি এশিয়া কাপ-২০১২ আয়োজক কমিটির সদস্য সচিব ছিলেন। শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত ২০১২ সালের টি-২০ ক্রিকেট বিশ্বকাপে বাংলাদেশ জাতীয় দলের হেড অব ডেলিগেশন ছিলেন।

তিনি বাংলাদেশ অলিম্পিক অ্যাসোসিয়েশন ও জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের কার্যকরী কমিটির সাবেক সদস্য এবং বাফুফের টেকনিক্যাল ও সিলেকশন কমিটিরও সাবেক সদস্য ছিলেন। তিনি ২০০৯ সালে ক্রীড়াবিদ ও ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে জাতীয় পুরস্কার লাভ করেন। তিনি বাংলাদেশ ক্রীড়া সাংবাদিক সংস্থা এবং ফ্রেন্ডস ক্লাব অব লস অ্যাঞ্জেলেস (যুক্তরাষ্ট্র) কর্তৃক আজীবন সম্মাননা পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়াও খেলোয়ার ও ক্রীড়া সংগঠক হিসেবে বিভিন্ন সময়ে তিনি অর্জন করেছন বহু মূল্যবান পুরস্কার।

মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে টুটুল
মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে টুটুল

দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশার ব্যাপারে টুটুল বলেন, আমি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে আওয়ামীলীগের দূর্দীনে রাজনৈতিক কর্মকান্ড সচল রাখতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করেছি। আমি মানিকগঞ্জকে মাদক, সন্ত্রাস, চাদাবাজ ও দুর্ণীতি মুক্ত করতে চাই এবং সুষ্ঠ ধারার রাজনৈতিক কর্মকান্ড আরো জোড়দার করতে চাই।

আমি আশাবাদী দল একজন সৎ ও দক্ষ সংগঠক ও পরিচ্ছন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিকে মানিকগঞ্জ জেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন দিবেন। তবে আমি বিশ্বাস করি দলীয় মনোনয়ন বোর্ডে যারা রয়েছেন তারা আমাকে বেছে নিবেন।

সম্পর্কিত খবর

সর্বশেষ খবর

spot_img