26 C
Dhaka

মিঠাপুকুরে বাবার শাসনে অভিমান করে পুত্রের আত্নহত্যা

প্রকাশিত:

মিঠাপুকুর(রংপুর)প্রতিনিধিঃ রংপুরের মিঠাপুকুরে মোবাইল ফোনে গেম খেলাসহ বখাটে সহপাঠিদের সাথে আড্ডা দিতে বাধা নিষেধ করে শাসন করায় ফাঁসিতে ঝুলে আত্মহত্যা করেছে নিরব নামে এক কিশোর। স্কুল ছাত্র। মঙ্গলবার রাতে এই ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করা হয়েছে। বুধবার তার লাশ পারিবারিকভাবে দাহ করা হয়।

আত্মহননকারী ওই ছাত্রের নাম শ্রী নিরব চন্দ্র(১২)। সে মিঠাপুকুর উপজেলার বড়বালা ইউনিয়নের নীশি চন্দ্র শীলের একমাত্র ছেলে এবং ছড়ান উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র।

পুলিশ ও এলাকাবাসি সূত্রে জানা গেছে, নিরবের বাবা নীশি চন্দ্র স্থানীয় ছড়ান বন্দরে সেলুনে কাজ করেন। মঙ্গলবার রাত ৮টার দিকে নীশি চন্দ্র বাড়ি গিয়ে দেখেন, নিরব ঘরে বসে মোবাইলে গেম খেলছিল। এসময় ছেলেকে মোবাইলে গেম খেলতে এবং বখাটে সহপাঠিদের সাথে আড্ডা দিতে নিষেধ করেন এবং মোবাইল ফোনটি কেড়ে নেন। এতে ক্ষুদ্ধ হয়ে নিরব শোবার ঘরে গিয়ে দরজা বন্ধ করে দেয়।

অনেকক্ষণ পরও ঘর থেকে বের না হওয়ায় দরজায় কড়া নেড়ে তাকে ডাকাডাকি করে কোন সাড়াশব্দ না পেয়ে দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে দেখেন, সিলিং ফানের সাথে ঝুলছিল নিরব। তাকে উদ্ধার করে স্থানীয় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পরে পুলিশে খবর দেয় এলাকাবাসি।

বড়বালা ইউপি চেয়ারম্যান তারিকুল ইসলাম সরকার স্বপন বলেন, ‘মূলত. বাবা-মার ওপর অভিমান করেই নিরব আত্মহত্যা করেছে। এ বিষয়ে কারো কোন অভিযোগ না থাকায় এবং পরিবারের অনুরোধে ময়না তদন্ত করা হয়নি। লাশ দাহ করা হয়েছে।’ মিঠাপুকুর থানার ওসি মোস্তাফিজার রহমান বলেন, ‘মোবাইল ফোনে গেম খেলতে না দেওয়ায় ছেলেটি আত্মহত্যা করেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় নিহতের বাবা নীশি চন্দ্রের আবেদনের প্রেক্ষিতে থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করা হয়েছে এবং স্বজন ও পরিবারের পক্ষে কোন অভিযোগ না থাকায় তাদের অনুরোধে লাশ ময়না তদন্ত ছাড়াই দাহ করার অনুমতি দেওযা হয়েছে।

সম্পর্কিত সংবাদ

spot_img

সর্বশেষ সংবাদ

spot_img