20 C
Dhaka

সীতাকুণ্ড অগ্নিকাণ্ড: পোড়া কঙ্কাল ও খুলি উদ্ধার, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪৬ (ভিডিও)

প্রকাশিত:

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে চট্টগ্রামের ইতিহাস স্মরণকালের ভয়াবহতম বিস্ফোরণ ও অগ্নিকান্ডের ঘটনায় আরও দুজনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। একটি পোড়া কঙ্কাল এবং একটি মাথার খুলি উদ্ধার করা হয়েছে ঘটনাস্থল থেকে। এ নিয়ে সীতাকুণ্ড অগ্নি দুর্ঘটনায় সর্বমোট ৪৬ জনের প্রাণহানির খবর পাওয়া গেলো।

উদ্ধার হওয়া পোড়া কঙ্কালের সঙ্গে ফায়ার সার্ভিসের হেলমেট ও গামবুট পাওয়া গেছে। এ কারণে ধারণা করা হচ্ছে, কঙ্কালটি কোনো একজন ফায়ার সার্ভিস কর্মীর হতে পারে।

বিএম কন্টেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণে ক্ষতিগ্রস্ত কন্টেইনার সরানোর কাজ চলাকালে ধ্বংসস্তূপ থেকে দুজনের দেহের অংশবিশেষ (পোড়া কঙ্কাল ও মাথার খুলি) উদ্ধার করা হয়। বিস্ফোরণে তাদের দুজনের শরীরের বেশিরভাগ অংশ পুড়ে যাওয়ায় প্রাথমিকভাবে পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

পোড়া কঙ্কাল ও মাথার খুলি উদ্ধার হওয়ার পর সেগুলো চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

এর আগে শনিবার, ৪ জুন রাত ৯টা ১৫ মিনিটের দিকে বিএম কন্টেইনার ডিপোতে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার কাজ শুরু করেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নেভানোর কাজ করা অবস্থায় আগুন লাগার ঘন্টাখানেক পর রাসায়নিক বোঝাই কন্টেইনারে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ঘটে।

বিস্ফোরণের ভয়াবহতা এতোটাই মারাত্মক ছিল যে, ৪-৫ মাইল দূর থেকেও বিস্ফোরণের বিকট আওয়াজ শোনা যায়, কেঁপে ওঠে আশপাশের পুরো এলাকা।

বিস্ফোরণের পরপরই বিএম কন্টেইনার ডিপোর বিভিন্ন জায়গায় আগুন ছড়িয়ে পড়ে এবং থেমে থেমে একাধিকবার বিস্ফোরণ ঘটে। ভয়াবহ এই বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডে বহু হতাহতের ঘটনা ঘটে।

এদিকে এই ঘটনায় কর্তব্যে অবহেলার অভিযোগে বিএম কন্টেইনার ডিপো পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত আট জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত অসামিদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, মামলায় যে আটজন আসামির নাম উল্লেখ করা হয়েছে তাদের মধ্যে প্রাথমিকভাবে মালিকপক্ষের কেউ নেই। মামলায় বিএম কন্টেইনার ডিপোর মালিকসহ মালিকপক্ষের কারো নাম না থাকলেও তদন্তের পর কারও বিরুদ্ধে কোনো রকম অভিযোগ পাওয়া গেলে তাকেও আসামি করা হবে।

সম্পর্কিত সংবাদ

spot_img

সর্বশেষ সংবাদ

spot_img